মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:১৮ অপরাহ্ন

কবরের উপর মসজিদ নির্মাণ নিয়ে যা বললেন তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ২২ জন পড়েছেন
শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা পাগলা কুতুবপুর ইউনিয়ন এর শাহীবাজার এলাকায় অবস্থানকৃত বৃহত্তর কবরস্থান নিয়ে যা বললেন কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারি। কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডেরর মেম্বার ও কবরস্থান কমিটির সভাপতি আলাউদ্দিন হাওলাদার বলেছেন কবরস্থানটা সরকারি জায়গায় ভেতরে পড়েছে। আমাদের এমপি মহোদয় ডিএনডির খালখননের জন্য অনেকগুলো টাকা আনছে। মসজিদটা সরকারি জায়গায় পরাতে এমপি মহোদয় বলেছেন, খাল খননের জন্য কোনো স্থাপনা থাকবে না যত দ্রুত সম্ভব সরিয়ে ফেলুন। তখন আমি বা আমরা কবরস্থানের কমিটির সবাই মনেকরি চেয়ারম্যান হচ্ছে এই কুতুবপুরের ম্যাজিস্ট্রেট! তিনি আরও বলেন আমা ৩৪ টা মসজিদ কমিটিকে চিঠি দিছি এখানে চেয়ারম্যানের উপস্থিতে আলচনা হয়। তখন প্রায় একশত লোকের মত উপস্থিতে মসজিদের কাজ দ্রুত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এখানে কবরস্থান সরাতে হলে ফতুয়া আনতে হবে। মসজিদের ৩৪ জন ইমামের মধ্যে ৩জনের মধ্যে একজন মাওলানা মহিউদ্দিন ফতুয়া আনার দায়িত্ব নিয়ে ফতুয়া আনেন। তখন শুরু থেকে চেয়ারম্যান সাহেব ছিল তখন একটা লোকও দেখি নাই কিছু বলতে। মেম্বার আলাউদ্দিন হাওলাদার আরও বলেন, জুরাইন থেকে কাপড়ের ব্যবসার জন্য আসে তাদের বলেছি তোমরা কোন সন্ত্রাসীকে চাঁদা দিবেন না শুধু মসজিদের জন্য দিবে। এখান থেকেও বিশেষ পেশার লোক ৫শত টাকা নিয়েছে
নারায়ণগঞ্জ জেলা কৃষকলীগের দপ্তর সম্পাদক ও কবরস্থানের সেক্রেটারি হুমায়ন কবির বলেছেন ডিএনডি বাঁধের মসজিদের একাংশ পড়াতে মসজিদ রক্ষার জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের নিকট শরণাপন্ন হয়। তিনি আমাদের বলেছেন ডিএনডি প্রকল্পে উন্নয়নের জন্য অনেক মসজিদ ভেঙে ফেলতে হয়েছে তাই আপনারাও মসজিটা ভেঙ্গে দিবেন। মসজিটি ভেঙ্গে দেওয়ার পর অবশিষ্ট ১২ ফিট জায়গা থাকে। এবং মসজিদের দক্ষিণ অংশে ২০ ফিট জায়গা আগেই খালি ছিল! যে ডিএনডি বাঁধে যদি মসজিটি ভাঙা হয় তখন যেন আমরা কবরটা সরাতে পারি। আরও ১২ ফিট জায়গা কবরস্থানে ১০টি কবর ছিল। সেটি সরাতে গিয়ে কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও কবরস্থানের আওতায় ৩২ টি মসজিদ কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারিসহ এলাকার গণ্যমান্য লোক নিয়ে আমরা সাধারণ সভা করি। এবং সকলের উপস্থিতির অনুমতি কর্মে আমরা মসজিদের এই পাইলিং কাজ সম্পন্ন করি। তিনি আরও বলেন এখানে কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু উপস্থিত থেকে বেইজ ঢালাই কাজ সম্পন্ন করেছে এখন ছাদের পর্যায়। এবং ২-১ জন আমাদের এলাকার ভোটারও না তারা আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালায়। যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদেরকে সংযত হয়ে সংবাদ প্রকাশ্যের অনুরোধ করছি। এবং এলাকাবাসী ও চেয়ারম্যান যদি চায় যে মসজিদের জন্য কবরস্থানে ১২ ফিট জায়গা নিয়েছি তা ছেড়ে দিতে হবে তাহলে আমরা ছেড়ে দিব। তবে এই কবরস্থানটি স্থাপিত হয়েছে ১৯৭৭ সালে আর ২০০৫ সালে এ মসজিদটি স্থাপিত হয়।

আর্কাইভ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও খবর